প্রতিদিন বাদাম কেন খাবেন?

বাদাম কত প্রকার বলতে গেলে অনেক বাদামের কথা মাথায় আসে তবে, বাদাম সাধারণত চার প্রকার। কাঠ বাদাম, চিনা বাদাম, পেস্তা বাদাম, কাজু বাদাম। এছাড়াও বাজারে অনেক রকমের বাদাম পাওয়া যায়। যা আলাদা আলাদা ভিটামিন ও প্রোটিন সমৃদ্ধ এবং তাদের স্বাদও ভিন্ন। চলুন আজকে বাদাম নিয়ে জানা যাক। 

কাঠ বাদামঃ–

আমাদের দেশে অনেক জনপ্রিয় একটি বাদাম হল এটি । এই বাদামের প্রতি আউন্স কাঠ বাদামে রয়েছে ১৬১ ক্যালোরি , ৫.৯ গ্রাম প্রোটিন, ১৩.৮ গ্রাম ফ্যাট। ক্যালোরি আমাদের দেহের শক্তি যোগায় এবং প্রোটিন দেহের বিকাশ করে। এছাড়াও বাদামে ৩৭ শতাংশ ভিটামিন ই রয়েছে যা ভিটামিন E এর একটি প্রয়োজনীয় পুষ্টি উপাদান ও দেহের অভ‍্যন্তরে আ্যন্টিবডি হিসেবে কাজ করে ।  

চিনাবাদামঃ–

মাখন একটি সুস্বাদু খাবার। এই খাবারের উপর স্বাস্থ্যকর উপায় হল এর থেকে বেশি বাদাম পাওয়া যায়। চিনা বাদামে রয়েছে খনিজ, ম্যাগনেসিয়াম, যা ত্বক ও চুল মসৃণ করে পাশাপাশি দাঁত ও মাড়ীকে মজবুত করে।চীনা বাদামে অ্যালার্জি হওয়ার সম্ভবনা থাকে। তাই অ্যালার্জি থাকলে এড়িয়ে চলুন।

পেস্তা বাদাম :–
এই বাদাম বিশ্ব জুড়ে খ্যাতি অর্জন করেছে। এটি রক্তে কোলেস্টেরল এর মাত্রা নিয়ন্ত্রণ রাখে এবং অন্ত্রের জন্য উপকারী।

নিয়মিত এই বাদাম ক্ষুধা হ্রাস করে ওজন কমাতে সহায়তা করতে পারে। এই বাদামে যেহেতু প্রোটিনের পরিমাণ ভালো মাত্রায় আছে তাই  বাচ্চাদের খাদ্য তালিকায় এই সুস্বাস্থ্য স্ন্যাক্সটি রাখা জরুরী।এটি স্বাস্থ্যের পাশাপাশি ত্বকের যত্নও রাখে

কাজু বাদাম : 

কাজু বাদামে প্রোটিন, কার্বোহাইড্রেট, ভিটামিন এ, আয়রন, জিংক, ক্যালসিয়াম ও পটাশিয়াম আছে অনেক। এটি কোলেস্টেরল কমায় ও রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়। এছাড়া প্রজনন ক্ষমতা বাড়ায় ও দাঁতের এনামেল মজবুত রাখে।

                    (✽ জেনে রাখা ভালো ✽)

পুষ্টিবিদরা বলেন, যেহেতু বাদাম একটি পুষ্টিসমৃদ্ধ খাবার, তাই এটি পরিমিত খাওয়া উচিৎ। বাদাম প্রতিদিন ৫০ থেকে ১০০ গ্রামের বেশি খাওয়া উচিৎ না।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *