করোনাই জীবন দিয়ে ঔষধ তৈরি করছে ।

অনেক অনেক মানুষের আত্মত্যাগ থাকে একেকটা রোগের জন্য উপযোগী ঔষধ তৈরীতে। মাসের পর মাস থেকে বছর পর্যন্ত চলে অনেক সাধনা। আমরা অন্তরালের খবর জানি না, শুধু ফলাফলটা দেখি।
Elisa Granato, ৩২ বছর বয়স, যিনি নিজেই একজন সায়েন্টিস্ট। অক্সফোর্ডের নতুন ভ্যাকসিনটা প্রথম তার শরীরে দেয়া হয়। শরীরে এন্টিবডি তৈরি হলে তাকে দেয়া হবে করোনাভাইরাস। ভ্যাকসিন কাজ না করলে তার মৃত্যুও হতে পারে।

এ এক অবিশ্বাস্য ঝুঁকি নেয়া। কোনদিন দেখা হবেনা এমন কোটি কোটি মানুষের জন্য তিনি এ ঝুঁকি নিয়েছেন। Oxford University এর prof. Gilbert আশা করছেন, এর কার্যকারীতা হবার সম্ভাবনা হয়তো ৮০%।
আমরা সবাই দোয়া করি, এই মহামারীর বিরুদ্ধে Elisa এর নেয়া এই ঝুঁকি থেকে স্রষ্টা তাকে বাঁচিয়ে দিক। সফল হোক এ উদ্যোগ। মানবতা রাখুক এক অনন্য দৃষ্টান্ত।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

LANGUAGES »